অনুশীলনে ফেরার চিন্তা শুরু করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ছবি: টুইটার

অনুশীলনে ফেরার চিন্তা শুরু করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ছবি: টুইটার

করোনাভাইরাসের প্রকোপ কবে কমে আসবে তার সঠিক হিসেব কেউ দিতে পারছেন না। চীন সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলেও ইতালি–স্পেনের মতো ইউরোপের দেশগুলিকে আরও অনেক দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে। অন্তত জুলাইয়ের আগে করোনাকে এই দেশগুলোর পক্ষে হারানো সম্ভব নয় বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

ইউরোপের ফুটবল কি ততদিন বসে থাকবে? উয়েফা অন্তত এতদিন অপেক্ষা করতেও রাজি নয়। তারা আগস্টের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে এই মৌসুম শেষ করতে বলে দিয়েছে। অর্থাৎ জুনের মধ্যে লিগ শুরু করতে হবে সবাইকে। অনেক ক্লাবই তাই অনুশীলনে নামার কথা ভাবতে শুরু করে দিয়েছে। স্পেনের রিয়াল সোসিয়েদাদ ১৪ এপ্রিল আবার ঘটা করে অনুশীলনে ফিরবে।

অনুশীলনে ফেরার চিন্তা শুরু করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ছবি: টুইটারঅনুশীলনে ফেরার চিন্তা শুরু করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ছবি: টুইটারকরোনাভাইরাসের প্রকোপ কবে কমে আসবে তার সঠিক হিসেব কেউ দিতে পারছেন না। চীন সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলেও ইতালি–স্পেনের মতো ইউরোপের দেশগুলিকে আরও অনেক দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে। অন্তত জুলাইয়ের আগে করোনাকে এই দেশগুলোর পক্ষে হারানো সম্ভব নয় বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

ইউরোপের ফুটবল কি ততদিন বসে থাকবে? উয়েফা অন্তত এতদিন অপেক্ষা করতেও রাজি নয়। তারা আগস্টের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে এই মৌসুম শেষ করতে বলে দিয়েছে। অর্থাৎ জুনের মধ্যে লিগ শুরু করতে হবে সবাইকে। অনেক ক্লাবই তাই অনুশীলনে নামার কথা ভাবতে শুরু করে দিয়েছে। স্পেনের রিয়াল সোসিয়েদাদ ১৪ এপ্রিল আবার ঘটা করে অনুশীলনে ফিরবে।

দেশব্যাপী লকডাউন কিছুটা শিথিল করছে স্পেন, জরুরি নয়, এমন পেশার লোকদেরও সোমবার থেকে ধীরে ধীরে কাজে যেতে দেওয়া হবে। এরই সুযোগে খেলোয়াড়দের অনুশীলনে ফেরার সুযোগ দিচ্ছে সোসিয়েদাদ। তবে তারা নিশ্চিত করেছে , অনুশীলন সবাই একাই করবেন। দল বেঁধে অনুশীলন করানো হবে না এবং এই অনুশীলন ঐচ্ছিক। ঘরে থেকে যে সব খেলোয়াড় ফিটনেস হারিয়ে ফেলার ঝুঁকিতে আছেন কিংবা ম্যাচ ফিটনেস হারিয়ে ফেলার শঙ্কা করছেন তাঁরা নিয়ন্ত্রিত পরিস্থিতিতে অনুশীলনে ফিরতে পারবেন।

রিয়াল সোসিয়েদাদের এমন সিদ্ধান্ত স্পেনের বেশ কিছু ক্লাবের মনে ধরেছে। রিয়াল মাদ্রিদ এদের একটি। স্পেনের ক্লাবগুলোর মধ্যে রিয়াল মাদ্রিদ সবার আগে কোয়ারেন্টিনে গয়েছিল। মিলানে খেলতে যাওয়ার পর তাদের এক বাস্কেটবল খেলোয়াড় ট্রে থম্পকিন্স করোনাভিয়ারসে আক্রান্ত হওয়ার পর ফুটবল ও সংশ্লিষত সবাইকে কোয়ারেন্টিনে পাঠায় তারা। এক মাস পেরিয়ে যাওয়ার পর নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ভাবছে রিয়াল।

এর মাঝেই ক্লাবের মেডিক্যাল টিমকে বলা হয়েছে নিরাপদ একটি ব্যবস্থা বের করতে, যেন ক্লাবের সবাই অনুশীলনে ফিরলেও করোনা সংক্রমণের কোনো সম্ভাবনা যেন সৃষ্টি না হয়। তবে ক্লাবকে এটাও মাথায় রাখতে হবে স্পেনে করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মাদ্রিদ অঞ্চল। এবং এখনো সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ন শহরের তালিকায় রয়েছে স্পেনের রাজধানী।

এখনো পর্যন্ত সোসিয়েদাদের মতো করে নির্দিষ্ট কোনো তারিখ ঘোষণা না করলেও রিয়ালের অনুশীলনে ফেরার সম্ভাবনা বাড়ছে বলেই ধারণা স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *